সমাপতন

– সৌম্য ভৌমিক

 

লম যখন যায় শুকিয়ে
একলা ঘরে মুখ লুকিয়ে
কাঁদি সঙ্গোপনে ,

ভাবনা যখন কাছে আসে না
স্বপ্ন চোখে আর ভাসে না
থাকি ঘরের কোণে ।

শব্দগুলো খুঁজতে থাকি
চিন্তা মনকে দিয়েছে ফাঁকি
তাকাই উদাস হয়ে ,

মায়াকাজল হারিয়ে গেলে
আলোর নিশান পিছনে ফেলে
সময় যায় বয়ে ।

ভাবের ঘরে হাতড়ে বেড়াই
আখরটাকে কোথায় যে পাই
বিবর্ণ জলছবি ,

উপায় কিছু পাই না খুঁজে
বালিশ নিয়ে মুখটি গুঁজে
নিথর হয় কবি ।

ছন্দগুলো হারিয়েছে খেই
সুর তাল কোথাও তো নেই

মৃত্যু কাছে ডাকে ,

গল্পের নটে গাছটি মুড়োয়
অন্ত্যমিলটা আঁধার কুড়োয়
ভস্ম পড়ে থাকে ।

এখন আমার হৃদয় মাঝে
মাতাল মাদল বাজে না যে
নাওয়ের ভরাডুবি ,

বাঁধনখানি আলগা হলে
মিথ্যে পড়ত হয় তো খোলে
থাক সব মুলতুবি ।

ফণিমনসা আঁকড়ে ধরে
খড়কুটোকে আপন করে
ব্যথা গোপন রাখি ,

মধ্যরাতের হতাশাগুলো
জমে থাকা ময়লা ধুলো
থাকলো হিসেব বাকি ।

নীলকণ্ঠ বিষের ভাঁড়ার
কখন কেটে গেলো যে তার
বিজলী দিল হানা ,

ছিঁড়তে চেয়ে দুখের মলাট
খাদের ধারের বন্ধ কপাট
ভাঙল পাখীর ডানা ।

ভরসার স্রোত হোঁচট খেলে
বিষকন্যার কাছে গেলে
ঝাপসা ভাঙ্গা কাচ ,

শীতল হলো আগুন যত
রক্তক্ষরণ অবিরত
নিভু নিভু আঁচ ।

জীবনের ক্লেদ ময়লা মুছে
আশার আলো যায় যে ঘুচে
মুখোশ খুলে ফেলা ,

অশরীরী শরীর পেলে
নেশার ভাণ্ড একলা ফেলে

সাঙ্গ হলো খেলা  ॥

____


ADMIN

Author: ADMIN

Comments

Please Login to comment