দেশগাথা – সমর্পণ মজুমদার

 

 

ই সেই দেশ, ভূমিতে যাঁহার সকল জাতির ধূলি-

সুনিপুণভাবে মিশিয়াছে মহা মিলনের রব তুলি।

এই সেই দেশ ঐক‍্য যাঁহার আজনম মহাব্রত,

সে ব্রত পালনে মুনিঋষিগণ যুগে যুগে ক্রিয়ারত।

এই সেই দেশ ভাবনা যাঁহার জগতে পেয়েছে মান।

জড়বাদ তাঁর গৌণ এবং ধর্মে রয়েছে প্রাণ।

এই সেই দেশ সমাজে যাঁহার যুগোপযোগীর জয়-

গোঁড়া চিন্তন গুঁড়ো হয়ে গিয়ে ফুৎকারে উড়ে যায়।

এই সেই দেশ বিশ্ব যাঁহার সঙ্গীতে রয় মজে-

অমর বাদ‍্যে মহান রাগিনী শৃঙ্গে-সাগরে বাজে।

এই সেই দেশ অঙ্কে যাঁহার গণিতের নিকেতন,

মনোবিজ্ঞান, জ‍্যোতিষ হইল সজ্ঞাত-সচেতন।

এই সেই দেশ শিল্প যাঁহার আশৈশব লব্ধ।

ভাস্বর হয় ভাস্কর আর স্হাপত‍্যে হই মুগ্ধ।‍

এই সেই দেশ মানস যাঁহার কাব‍্যিক রসসিক্ত-

ধ্বনিবিজ্ঞান, ছন্দের বলে শ্রেষ্ঠচূড়াভিষিক্ত।

এই সেই দেশ স্বাস্হ্যে যাঁহার খেলিছে স্বতঃস্ফূর্তি-

আয়ুর্বেদ আর যোগের শাস্ত্রে কর্মশ্রেষ্ঠ মূর্তি।

এই সেই দেশ শোণিত যাঁহার শাণিত বীরের বীর্যে-

রূদ্রবীণায় কাঁপিয়া হৃদয় কাঁপাইল মহাতূর্যে।

এই সেই দেশ কন্ঠ যাঁহার করিল উচ্চারণ-

চরম জ্ঞানের মন্ত্রগাথায় দৈব সম্ভাষণ।

এই সেই দেশ অতীত যাঁহার পূণ‍্যকর্মে পূর্ণ।

আজি নৈতিক অধঃপতনে, দম্ভে হয়েছে চূর্ণ।

একদা যাঁহার কেতন উড়িত নৈতিক মেরুদন্ডে,

আজিকে উক্ত কেতন দুষায় স্বার্থপর আর ভন্ডে।

একদিন হায় যাঁহার মাথায় ছিল শ্রেষ্ঠোষ্ণীষা,

তাঁহার কন্ঠে তীব্র আজিকে পরানুকরণ তৃষা।

একদিন যাঁর অন্তরে ছিল পূর্ণ সতেজ প্রাণ,

সুপ্ত হৃদয়ে পরের দাপটে সহিছেন অপমান।

তবুও তো আজও বেঁচে আছে আশা, জীবিত জ্ঞানোষ্ণতা,

শিরায় শিরায় স্বপ্ন জাগায়ে নবপ্রাণ স্পন্দিতা।

যোগের বাঁধনে সেই স্পন্দনে আসিবে নিপুণ ছন্দ,

জাগিয়া উঠিবে সনাতন জ্ঞান, মুছিয়া যাইবে মন্দ।

মুক্তজ্ঞানের রূদ্ধ দুয়ার চূর্ণ হইবে যবে,

ভারতলক্ষ্মী মেলিয়া অক্ষি হাসিবেন গৌরবে ।।

_____


FavoriteLoading Add to library
Up next
মনে আছে – সুস্মিতা দত্তরায়... বয়স এগিয়ে গেছে- ঝাপসা স্মৃতির অন্তরালে প্রেমটা রয়ে গেছে । সেই যে তখন ছুটির দিনে কাপড় মেলা ছাদে লজ্জা খুশির লুকোচুরি সোহাগ মাখানো রোদে । ...
কর্মযোগী প্রফুল্লচন্দ্র... - সমর্পণ মজুমদার     ২রা আগস্ট ১৮৬১ খ্রিস্টাব্দে জন্ম হয়েছিল এমন একজন মনীষীর, যিনি বাংলার নবজাগরণের একজন উল্লেখযোগ্য পথিকৃৎ। যাঁর সম্বন্ধে ব...
আমার তুমি- মুক্তধারা মুখার্জী...   “কিগো, তাড়াতাড়ি এসো না। মশারিটা তাড়াতাড়ি টাঙিয়ে দিয়ে যাও না। আর কতক্ষণ বসে থাকবো। বসে বসে তো গাঁটের যন্ত্রণাটা বেড়ে গেল”। “তো আমি কি করবো? আম...
হারানো সুর – সুস্মিতা দত্তরায়... চোখের জল বাঁধ ভাঙলো ইরার। চোখ ছাপিয়ে দুই গাল বেয়ে নেমে এলো অশ্রুধারা। দুই হাতে তা মুছে আবার ফিরে তাকাল ওই দোতলা বাড়ীটার দিকে। তারপর ধীর পায়ে উঠোনটা পে...
মনপাখি – রাজেশ সামন্ত... 'মনপাখি' চল নারে আজ অনেকদূর যাই , সবুজ ঘেরা ভালোবাসার নিশান যেথায় পাই | মেঘকে আজ ভেলা করে আকাশে দেবো পাড়ি , শঙ্খচিলেরা উড়বে যেথায় দলবেঁধে সারি সারি...
পুজোর একদিনের পরকীয়া প্রেম (সাথে সুজয় দা আর পুচকী)... আমি সোহিনী , আর ওই যে দালানে হলুদ পাঞ্জাবী পরা ভদ্রলোকটি আমার দাদা আর তার ঠিক পাশেই বেগুনী পাঞ্জাবী , দাদার বন্ধু সুজয় দা । আজ অষ্টমীর সকাল আর আমাদের...
মুখের মুখোশ -দেবাশিস ভট্টাচার্য... চারপাশটা একবার ভালো করে দেখে নিলো দিয়া।আশেপাশে কেউ নেই।নিশ্চিন্ত হয়ে পুরোনো আমলের দরজাটার চাবি খুলে ঘরের মধ্যে ঢুকলো।একটা ভ্যাপসা গন্ধ তার সাথে নিকষ ক...
স্ফুলিঙ্গ –  কৌশিক প্রামাণিক...   আজ যেন সব হারিয়ে যেতে চাইছে ক্ষণিকের মিথ্যাগুলোর জন্যে, তবু তো আমি আঁকড়ে ধরতে চেয়েছিলাম সেই পুরোনো তোমাকে | এই সেদিনকারই তো কথা যেদিন আমায...
লাল নীল স্বপ্ন- মুক্তধারা মুখার্জী...   দূর। দূর। কি হবে রোজ ছাই পাশ সরকারি চাকরীর পরীক্ষা দিয়ে? খালি গাদা গুচ্ছের টাকা জলাঞ্জলি। চাকরীর পরীক্ষার ফর্ম তুলতেই পকেট ফাঁকা। সাধারণ গ্র‍্...
নিঃসীম সুদূরের আহ্বানে... - অরূপ ওঝা   ইচ্ছে হয়,যাই উড়ে অজানা জগতের পানে, ছেড়ে সমস্ত বাহুপাশ যাবো ছুটে নিঃসীম সুদূরের আহ্বানে l বড়ো দুর্বার সে ডাক সমস্ত পিছুটান যাক...
ADMIN

Author: ADMIN

Comments

Please Login to comment