মায়ের আঁচল- বিভূতি ভূষণ বিশ্বাস 

 

রে বাপরে ১০ টা বেজে গেছে,সর্বনাশ করেছে ১০ টা থেকেই তো ডিউটি । তাড়াহুড়ো করে বেরিয়ে পড়লাম । কি আর করবো সব কাজই তো আমাকে করতে হয় । যাবার সময় মা ঠিকই বলে গিয়েছিলেন ” বাবা তাড়াতাড়ি বিয়ে করে নিস” । কিন্তু মা মনের মতো মেয়ে তো পাইনা । কি করবো বলো । এই সব ভাবতে ভাবতে অফিসে রওনা দিলাম । ১০ মিনিট পায়ে হেঁটে স্টেশনে পৌঁছে দেখি লোকে লোকারণ্য । ওহ এখন তো গঙ্গা সাগরের মেলা চলছে । মনেই নেই আর কি করেই বা মনে থাকবে আমরা যে স্টেশন মাস্টার দিনরাত সপ্তাহের নামও ভুলে যাই । শুধু ডিউটি আর ডিউটি ছাড়া কিছু বুঝি না ।

       লক্ষ্মীকান্ত পুরই তো  গঙ্গাসাগরে  যাবার মেইন স্টেশন । এই মাস দুই হলো আমার পোস্টিং হয়েছে । সিঁড়ি দিয়ে অফিসে উঠতেই দেখি এক ভদ্রমহিলা বসে আছে সিঁড়ির উপর । বয়স ৫০/৫৫ হবে । আমি জিজ্ঞাসা করলাম আপনি এখানে বসে কেন ? উনি যে কি ভাষায় কথা বললেন বুঝতেই পারলাম না । অগত্যা পাশ কাটিয়ে দু’তলায় আমার অফিসে চলে গেলাম । রাত আটটায় আমার ছুটি হলো তখনো দেখি উনি ওখানে ঠাঁই বসে আছেন আর ডুকরে ডুকরে কাঁদছেন । জিজ্ঞাসা করলাম বাড়ি কোথায় ? কি যে বললো বুঝতেই পারলাম না অগত্যা পাশ কাটিয়ে চলে গেলাম নিজের রেল- কোয়াটারে ।

        অস্থির অস্থির লাগছে ঘুম আসছে না শুধু ঐ মহিলার কথা মনে পড়ছে অগত্যা স্টেশনে গিয়ে দেখি উনি এখনো ওখানেই বসে আছেন । জিজ্ঞাসা করলাম কিছু খাওয়া দাওয়া হয়েছে ? উনি হা করে চেয়ে রইলেন । অগত্যা ইশারা করে খাবার কথা জিজ্ঞাসা করলাম । এবার হাত নাড়িয়ে উত্তর দিলেন — ‘না’ । ইশারা করে আমি বললাম আমার সঙ্গে যেতে । উনি উঠে পড়লেন আমি একটা হাত ধরে আমার রেল-কোয়াটারে নিয়ে গেলাম ।

     এখন উনি মায়ের মতো সব কাজ করেন কিন্তু দুজনের মধ্যে ইশারাতে কথা হয় । যেন দুজনাই বোবা । আমাকে আর কষ্ট করে রান্না করতে হয় না । মাস খানেক পর এক দিন ভোরে কলিং বেল বেজে উঠলো দরজা খুলে দেখি পুলিশ ও দুজন অচেনা লোক । পুলিশ জিজ্ঞাসা করলেন ——- ‘আপনি কি মিস্টার বি.বি. বিশ্বাস’ ।

——- আমি বললাম, ‘হ্যাঁ’।

পুলিস বললেন ——-  আপনার ম্যাসেজ আমরা পেয়েছি । এনারা এনাদের মা কে হারিয়েছেন তাই দেখতে এসেছেন । এদিকে ভদ্রলোক মহিলাকে দেখে মা মা বলে কেঁদে ফেলে জড়িয়ে ধরলেন । ওনারা বললেন মা শুধু তামিল ভাষাই বোঝেন । খুবই কষ্ট হয়েছিল সেদিন ওনাকে বিদায় দিতে ।

_____


FavoriteLoading Add to library
Up next
ভূতের সঙ্গে এক পলক – প্রদীপ চট্টোপাধ্যায়... ঘটনাটা কেউ বিশ্বাস করবে না জানি। আসলে আমিই তো এখনও বিশ্বাস করতে পারি না। অন্য কেউ করবে কি করে! তবে ফালতু কথায় লাভ নেই। আসল কথায় আসা যাক। ঘটনা খুব একটা...
দুর্গেশগড়ের গুপ্তধন মুভি রিভিউ...  পরিচালক ধ্রুব ব্যানার্জী পরিচালিত ‘গুপ্তধনের সন্ধানে'-র পর তারই সিকুয়েল মুক্তি পেল ‘দুর্গেশগড়ের গুপ্তধন'। এখানে বলে রাখা দরকার যারা ‘গুপ্তধনের সন্ধ...
নিজের সঙ্গে দেখা - দেবাশিস ভট্টাচার্য   আজ বিয়ের পঁচিশ বছর সম্পূর্ণ হলো।আমি অনিন্দিতা বসু।  ব্যাংক এর ডেপুটি ম্যানেজার সায়ক বসুর স্ত্রী। নবনীতা বসুর মা। এই এখ...
পড়-ঢলানি পরকীয়া পরকীয়া শ্রেয় কিন্তু যখন ভাবায় তখন!ভাবায় অনেক,থমকে যাওয়ার মাঝে অনেক টা ফাঁক ,ফাঁক থেকে ফাঁকা ,ফাঁক থেকে ফাঁকি,এহলো "ফাঁক "এর প্রেম একবার "আ "-এর সাথে ত...
মোহ – বিভূতি ভূষণ বিশ্বাস...  আমরা দুই বাঙ্গালী বন্ধু আমেদাবাদ ষ্টেশন দিয়ে ঘুরে ঘুরে প্লাটফর্ম ও ট্রেনের লোকজন দেখে বেড়াচ্ছি । আমাদের বয়স কত আর হবে এই উনিশ কুড়ি, সালটা ছিল ১৯৯১ । ...
করিডোর - বর্ষা বেরা   ব্ল্যাক করিডোর,কানে হেডফোন,কফিতে চুমুক        হাতে ব্যোমকেশ। মুখে সাদা ধোঁয়া,গুনছে প্রহর,এক ঝড়েতেই    সবশেষ ।। হঠাৎ বসন্ত,...
পরশপাথর         মৌতমা হাতের গোলাপটার দিকে তাকিয়ে ভাবল গোপাল কি সত্যিই তাকে ভালোবাসে? আজ যেভাবে জয় আর তার বন্ধুদের থেকে মার খেল....আজকের ভ্যালেন্টাইন্স ডের সন্...
ওদের তো মন আছে, শরীর আছে – তুষার চক্রবর্তী... (১) সৌনক আটটা নাগাদ ঘুম থেকে উঠে মুখ ধুয়ে নিজের হাতে চা বানিয়ে নিয়ে, এসে বসেছে তার আট তলার ফ্ল্যাটের ব্যালকনিতে। সঙ্গে গত সোম থেকে আজ রবিবারের খবরের ...
।।ঠোঁটের ভালোবাসা।।... ফেসবুক থেকে বেডরুমের জার্নিটা তোর মনে আছে?কি যে বলিস? ভোলার জো আছে?তোর এক ডাকেতেই কিভাবে ছুটে গেছিলাম নর্থ টু সাউথ?দরজায় তোর ফার্স্ট অ্যাপিয়ারেন্সেই...
সে যে মানে না মানা বলেছিলাম অনেক কথা বলিনি তবে কিছু গোপন থেকে সব কথাকে ই বলে দিয়েছি কিন্তু,বুঝলেন না!গুলিয়ে গেলো,আমার ও ঘেঁটে ঘ,প্রেম কিন্তু বড্ড জটিল,প্রেম জটিলতার জট!"...
ADMIN

Author: ADMIN

Comments

Please Login to comment